শামীম ওসমান আমাদের গর্ব ও অহংকার: শাহ্ নিজাম

0
22
শামীম ওসমান আমাদের গর্ব ও অহংকার: শাহ্ নিজাম

স্টাফ রিপোর্টার : আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে শামীম ওসমানকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার জন্য উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছেন মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ্ নিজাম।

তিনি নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে বলেন, নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী পরিবারের সন্তান খান সাহেব ওসমান আলীর দৌহিত্র সামসুজ্জোহা সাহেবের ছেলে শামীম ওসমান সাহেবের একটি স্বপ্ন, একটি চাওয়া সেটা হলো নারায়ণগঞ্জের মানুষের জীবন যাত্রার মান উন্নয়ন করা ও নারায়ণগঞ্জকে বাংলাদেশের একটি মডেল জেলা হিসাবে প্রতিষ্ঠা করা। আর সেই লক্ষ্য নিয়েই অবিরাম চলছেন তিনি। সাথে আছে নবীন ও প্রবীন এক ঝাঁক মজিবীয় সৈনিক।

শাহ্ নিজাম আরো বলেন, শামীম ওসমান যখন ৯৬ সালে সংসদ সদস্য হিসাবে নির্বাচিত হন সেই নারায়ণগঞ্জ আর আজকের নারায়ণগঞ্জ আকাশ পাতাল তফাৎ। নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রাচ্যের ডান্ডি হিসাবে পরিচিত ও ব্যবসা সমৃদ্ধ এলাকা। আর ৯৬ সালে ব্যবসা সমৃদ্ধের জন্য। তিনি নারায়ণগঞ্জের এনালগ টেলিফোনকে ডিজিটালে রূপান্তর করেন, যোগাযোগ ব্যবস্থা আরো সম্প্রসারণের জন্য লিংক রোড নির্মান করেন সরকারী তোলারাম কলেজ শিক্ষার আলো বিস্তারের জন্য সরকারী তোলারাম কলেজে শহীদ জননী জাহানারা ইমাম কলা ভবন নির্মান করেন। রাস্তা-ঘাট, ব্রীজ-কালবার্ট, নির্মান করেন, নাঃগঞ্জ বাসীর শত বৎসরের কলংক পতিতা পল্লী পুনর্বাসনের জন্য উচ্ছে করেন, তার রাজনৈতিক দূর দর্শিতা প্রজ্ঞা দেখে আমরা গর্ব এবং অহংকার বোধ করি। কারণ তিনি সর্বপ্রথম নারায়ণগঞ্জে জামাতের রাজনীতি নিষিদ্ধ করেছেন।

নিজাম আরো বলেন, তৎকালীন জামাতের নেতা গোলাম আজম, দেলোয়ার হোসেন সাইদী ও মতিউর রহমান নিজামীকে নারায়ণগঞ্জে নিষিদ্ধ ঘোষানা করা হয়। আর তাতেই ৭১-এর পরাজিত শক্তিরা আমাদের চাষাড়াস্থ আওয়ামীলীগ অফিসে বোমা হামলা করে। আমরা আমাদের অনেক সহকর্মীদের চিরতরে হারিয়ে ফেলি। শামীম ওসমান মৃত্যুর দুয়ার থেকে আল্লাহর অশেস রহতে ফিরে আসে। কিন্তু আমরা এজন্য বর্গবোধ করি শামীম ওসমান যেই জিনিষটি বুঝতে পেরেছিলেন ৯৬ সালে সেটা আওয়ামীলীগের বড় বড় নেতারা বুঝতে পেরেছে অনেক দেরীতে।

তিনি বলেন, শামীম ওসমান ৯৬ সনে প্রায় ২৪শত কোটি টাকার কাজ করেছিলেন। তিনি ঐ সময় বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি টাকার কাজ করেছিলেন। এবার সংসদ সদস্য হয়ে তিনি ১২ বছরের ইজা টানছে। জোট সরকারের গিয়াস উদ্দিন মইনুদ্দিন ফখরুদ্দিন ও চলচিত্র মিষ্টি নায়িকা সারা বেগম কবরীর ইজা টানতে হচ্ছে শামীম ওসমানকে। কারণ এ বার বৎসরে তারা ফতুল্লা সিদ্দিরগঞ্জ এলাকাকে অবহেলিত করে রেখেছেন। তারই রেশ ধরে শামিম ওসমান তার নিবাচনী এলাকা ৭ হাজার ১শত কোটি টাকার উন্নয়ন মূলক কাজ করেছেন। ডিএনডির ২২ লাখ মানুষকে পানি বন্দির মুক্তি থেকে ৫৭৮ কোটি টাকা বরাদ্দ এনে কাজ চলমান। সুতরাং এই উন্নয়নের ধারাকে অব্যাহত রাখতে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি সহ আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনকে শামীম ওসমানের উন্নয়ণগুলো ডোর টু ডোর। পৌঁছে দেওয়ার উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছেন এবং একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শামিম ওসমানকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে বিজয়ী করার আহ্বান জানিয়েছেন। এজন্য শামীম ওসমান আমাদের গর্ব ও অহংকার।