নতুন বছরের শুরুতেই বইয়ের বোঝা শিশুর কাধে!

0
7
নতুন বছরের শুরুতেই বইয়ের বোঝা শিশুর কাধে!

নিজস্ব প্রতিবেদক :  নতুন বছরের প্রথমদিন থেকেই নারায়ণগঞ্জ জেলা সহ সারা দেশব্যাপি পালিত হয়ে গেল বই উৎসব। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকার অবদানে বছরের প্রথম দিনেই শিশুরা হাতে পাচ্ছেন সরকারী নতুন বই। সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয়ের বই গুলোর পাশাপাশি বেসরকারী কিন্ডার গার্টেন স্কুলের শিশুদের হাতে তুলে দেওয়া হয় এই নতুন বই।

সরকার নির্ধারিত শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক প্রথম শ্রেনী থেকে পঞ্চম শ্রেণীর বই পাচ্ছেন সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা। পাশাপশি কিন্ডার গার্টেন স্কুল থেকে স্ব-স্ব বিদ্যালয় থেকে অতিরিক্ত আরো ৭টি বই সহ মোট ১০টি বই শিশুরা অধ্যায়ন করছেন।

অভিবাভকগনরা শিশুদের স্কুল ব্যাগে অনেকটা বাধ্য হয়েই এসব বাড়তি বইয়ের বোঝা চাপিয়ে দিচ্ছেন। তাই এক কথায় বলা চলে ‘বইয়ের বোঝা শিশুর কাধে’। কেন এ ধরনের অবিচার শিশুদের প্রতি? প্রশ্ন সকলের।

নারায়ণগঞ্জ জেলায় যত্রতত্রই একাধিক স্থানে গড়ে উঠেছে এসব কিন্ডার গার্টেন স্কুলগুলো। সূত্র থেকে জানা যায়, আবাসিক বাসাবাড়ির ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়ে গড়ে তুলছেন বাচ্চাদের জন্য এসব কিন্ডার গার্টেন স্কুলগুলো। কতটা মান সম্পন্ন এসব কিন্ডার গার্টেন স্কুল আর কতটা মানসম্পন্ন শিক্ষক এসব স্কুল গুলোতে শিশুদের পাঠদান করেন থাকেন এসব বিষয় নিয়ে ভীষন চিন্তিত এখন সচেতন অভিবাভক মহল!

কিন্ডার গার্টেন স্কুলো চলে তাদের নিজস্ব গতিতে। তাই নিজস্ব গতিতে চলার কারনে অভিভাবকরা বিভিন্ন ভাবে হয়রানির স্বীকার হচ্ছেন। প্রধম শ্রেণীর একজন শিশু শিক্ষার্থীকে সরকারী বই ব্যাপিতত ১ থেকে দেড় হাজার টাকায় বই কিনতে হয়।

এতোসব বই পড়েও শিক্ষার্থীদের গুণগত মান উন্নত হচ্ছে কিনা তা নিয়ে অভিজ্ঞ মহলের রয়েছে নানা প্রশ্ন। প্রথমিক পার্যায়ের এইসব কিন্ডার গার্টেন স্কুলের শিক্ষার্থীরা শধুমাত্র ইংরেজী ও আকাঝোকায় ব্যাস্ত থাকায় বয়স অনুপাতে বৃত্বিক চর্চা ও সঠিক শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হয়ে থাকে। ফলে কিন্ডার গার্টেন স্কুলের শিক্ষার্থীরা প্রাথমিক পর্যায়ে পরীক্ষায় নম্বর প্রাপ্তির বাহাদুরি দেখাতে পারলেও ক্রমাগত উচ্চ পর্যায়ে গিয়ে শিক্ষার মান পতন হতে দেখা যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here