ভোটের দিন সমান সুযোগ চাইলেন বিএনপি প্রার্থী কাজী মনির

0
188

নিজস্ব প্রতিবেদক : নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ) আসনে বিএনপির প্রার্থী কাজী মনিরুজ্জামান মনির বলেছেন, আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের এ লড়াইয়ে আমি শেষ পর্যন্ত থাকবে। ১৯৭১ সালে রূপগঞ্জ থেকে ৪১ জন সহযোদ্ধা নিয়ে ভারতের আগরতলায় রওনা হয়েছিলাম। কিন্তু যখন আগরতলা পৌছলাম তখন সঙ্গী ছিলেন মাত্র ২১ জন। এজন্য মুক্তিযুদ্ধ থেমে থাকেনি। তিনি বলেন, ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে আমরা পরিপূর্ণ বিজয় না পেলেও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের প্রথম ধাপে আমরাই জয়ী হবো। নির্বাচনে প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগ প্রার্থী গাজী গোলাম দস্তগীরকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনিও একজন মুক্তিযোদ্ধা। আশা করবো অপর একজন মুক্তিযোদ্ধার সঙ্গে নির্বাচনী লড়াইয়ে সমান সুযোগ দেবেন। ভোট কেন্দ্র দখলের মতো ঘৃণ্য কোন ঘটনা না ঘটিয়ে ভোটারদের ইচ্ছার প্রতিফলনের প্রতি আস্থা রাখুন। ভোটাররা আমাকে ভোট না দিলে আমি সেটা মেনে নেব।
গতকাল শুক্রবার সকালে বিএনপি প্রার্থী কাজী মনিরুজ্জামন মনির তার তারাব এলাকার নিজ বাড়িতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি আওয়ামী লীগ প্রার্থী এবং প্রশাসনের প্রতি এ আহবান জানান। কাজী মনির আবেগঘন কন্ঠে বলেন, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর রূপগঞ্জে বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের ২৭২ জন নেতা কর্মীর বিরুদ্ধে রূপগঞ্জ থানায় ৫টি গায়েবী মামলা দায়ের করা করেছে প্রতিপক্ষ। ওইসব মামলায় দলের যেসব নেতাকর্মী পোলিং এজেন্ট এবং ভোটের দিন কেন্দ্রের বাইরে দায়িত্ব পালন করতো তাদের আসামী করা হয়েছে। মামলাগুলোর মধ্যে সর্বশেষ মামলাটি দায়ের হয়েছে গত ২৭ ডিসেম্বর। এছাড়া অপর মামলা গুলো দায়ের হয়, ২৬ ডিসেম্বর, ২৪ ডিসেম্বর, ২৩ ডিসেম্বর এবং ১৭ ডিসেম্বর। এসব মামলায় আমার ১৯ নেতা কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সবচেয়ে দুঃখের বিষয় গত বুধবার কাঞ্চন পৌর ছাত্রদল নেতা শফিকুল ইসলামকে না পেয়ে তার বৃদ্ধ বাবা শহীদুল্লাহকে ধরে নিয়ে যায় নারায়ণগঞ্জ ডিবি পুলিশ। এরপর তাকে ৩ দিনের রিমান্ডে আনা হয়। অথচ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর নির্বাচন আইন অনুযায়ী এসব মিথ্যা মামলা হওয়ারই কথা নয়। এসব বিষয়ে রিটার্নিং অফিসারের কাছে ৫টি লিখিত অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাইনি। অথচ ভোট একটি গণতান্ত্রিক অধিকার। যার ভোট সে দিবে, যাকে খুশি তাকে দিবে-এমনটি হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে, ওনাদের ভোট ওনারই দেবে, সঙ্গে সবার ভোটও ওনারাই দেবেন।
কাজী মনির অভিযোগ করেন, নির্বাচনের প্রচার শুরুর পর পুরো রূপগঞ্জকে সন্ত্রাসের চাদরে ঢেকে দেওয়া হয়েছে। দলের নেতা কর্মীদের বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাঙচুর এবং অগ্নিসংযোগের পাশাপাশি বাড়ির ভাড়াটেদেরও বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হয়। এসব করেই ক্ষ্যান্ত হয়নি প্রতিপক্ষ। দলের নেতাকর্মীদের অনেকের বাড়ি-ঘরের গ্যাস ও পানির সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়। সরকারি দলের নেতাকর্মীদের পাশাপাশি পুলিশও সমান তালে বিএনপি’র নেতাকর্মীদের উপর আগ্রাসন চালাচ্ছে। যেসব নেতাদের বাড়িতে পাওয়া যাচ্ছে না তাদের পরিবার ও আত্মীয় স্বজনদের হুমকি ধমকি দেওয়া হচ্ছে। এত কিছুর পরেও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের লড়াইয়ে একজন সৈনিক হিসেবে আমি শেষ পর্যন্ত লড়াই করে যেতে চাই।
কাজী মনির বলেন, ভোটর দিন যদি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নিরপেক্ষ ভূমিকা নেন আর ভোটাররা যদি ভোট কেন্দ্রে নির্বিঘেœ যেতে পারে তাহলে জয়ে ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদি।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here