দেশজুড়ে বিতর্কিত সেই ওসি আসছেন রূপগঞ্জ থানায়!

0
34
দেশজুড়ে বিতর্কিত সেই ওসি আসছেন রূপগঞ্জ থানায়!

নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডট নেট : ব্যাপক অনিয়ম, দুর্নীতি আর ঘুষ বানিজ্যের কারণে দেশজুড়ে বিতর্কিত ওসি শাহ আওলাদ হোসেন রূপগঞ্জের নতুন ওসি হিসেবে যোগ দিচ্ছেন বলে একটি সূত্র থেকে জানা গেছে। ৮ বছর পূর্বে উপ-পরিদর্শক থাকাবস্থায় অপকর্মে অতিষ্ট স্থানীয় মানুষ তার বিরুদ্ধে জুতা মিছিল ও মহাসড়ক অবরোধ করে তাকে রূপগঞ্জ ছাড়তে বাধ্য করেন। সেই আওলাদ রূপগঞ্জের ওসি হিসেবে পদায়ন হবার খবরে এলাকার জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি হচ্ছে।
জানা যায়, ভোলার চরফ্যাশন এলাকার মফিজুর রহমানের ছেলে আওলাদ হোসেন ২০০১ সালে বিএনপি জামায়াত ক্ষমতাকালে পুলিশ বাহিনীতে যোগদান করেন। ২০১০ সালে উপ-পরিদর্শক থাকাকালে রূপগঞ্জে চাকরি করেন তিনি। সেসময় উপজেলার ভুলতা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জের দায়িত্বপালন কালে মাদক ব্যবসায়ীদের আশ্রয়-প্রশ্রয়, শিল্পকারখানা ও পরিবহন সেক্টরে চাঁদাবাজি, চুক্তিতে জমিদখল ও লোকজনকে মামলায় জড়ানো, গ্রেফতার বাণিজ্যে আর সন্ত্রাসীদের সাথে সখ্যতার কারনে তার বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠে সাধারন মানুষ।
২০১১ সালের ৩০ ডিসেম্বর লোকজন জুতা নিয়ে তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। সেসময় তার প্রত্যাহারের দাবিতে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে এলাকাবাসী।
এ ঘটনার কারণে পুলিশ বিভাগ তাকে রূপগঞ্জ থেকে সরিয়ে নেয়। পরবর্তিতে ২০১৩ সালে পদোন্নতির সুবাদে খুলনার ডুমুরিয়া, খুলনা জেলা গোয়েন্দা পুলিশ, মাগুরার শ্রীপুর, রাজবাড়ি সদর, বরিশালের কোতয়ালী থানায় চাকরি করেন তিনি।
বরিশালের কোতয়ালী থানায় কর্তব্যপালনকালে ২০১৬ সালের ২০ আগষ্ট মাহেন্দ্র শ্রমিক ইউনিয়নের সম্পাদক মিলন মোল্লা ও সোহেলকে থানায় আটক রেখে মুক্তিপন দাবী করেন আওলাদ। পরে শ্রমিকরা সেখানেও তার বিরুদ্ধে মিছিল বের করে। এসময় শ্রমিকদের সাথে সংঘর্ষে ৬ পুলিশসহ আহত হয় অন্তত ২৫জন। পরে শ্রমিকদের চাপের মুখে তাদের ছাড়তে বাধ্য হয় আওলাদ। মামলা করেন ৬৬ শ্রমিকের বিরুদ্ধে।
ছাড়া বরিশালের আবাসিক হোটেলে অনৈতিক কাজ ও মাদক ব্যবসায়ীদের মাসে মাসোয়ারা রফাদফা করার অডিও বার্তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যেমে ছড়িয়ে পড়লে সারা দেশজুড়ে ব্যাপক আলোচিত হয় ওসি আওলাদ। সেসময় তার কারণে সমালোচনার মুখে পরে পুরো পুলিশ বিভাগ।
২০১৭ সালের ৫ ফেব্রুয়ারী বরিশাল কোতোয়ালী থানার ওসি থাকাকালীন ক্ষমতার অপব্যবহার, আদালত অবমাননা, দুর্নীতি ও ঘুষ দাবির অভিযোগে স্থানীয় সিএন্ডবি সড়কের ১নং পোল এলাকার আবু সাঈদের স্ত্রী নিলুফার বেগম বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলাটি বর্তমানে দুদক তদন্ত করছে।
তার বিরুদ্ধে অতিষ্ট হয়ে গত ২০১৭ সালে ভোলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন চরফ্যাশনের শত শত সাধারন মানুষ। সেখানে অভিযোগ করা হয়, ওসি আওলাদ ক্ষমতার দাপট খাটিয়ে চরফ্যাশন উপজেলার জিন্নাগর মৌজায় ১৪৮ নং এসএ খতিয়ানে চরফ্যাশনের বীর মুক্তিযোদ্ধা আমির হোসেন, সামসুম নাহার ও উজির পেসকারের ৬৮ শতাংশ জমি দখল করে নেয়া ছাড়াও এলাকার শত শত সাধারন মানুষকে জিম্মি করে নানাভাবে অত্যাচার করছে। ঘটনা ধাপাচাপা দিতে পরের দিন একই প্রেসক্লাবে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করে ছেলে ও নিজেকে নিদোর্ষ দাবি করেন আওলাদের বাবা মফিজুল ইসলাম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here