রবিবার, এপ্রিল ২১, ২০১৯
Home বিবিধ খেলার খবর প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেটে সামসুজ্জোহা স্মৃতি একাদশের জয়লাভ

প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেটে সামসুজ্জোহা স্মৃতি একাদশের জয়লাভ

0
9
প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেটে সামসুজ্জোহা স্মৃতি একাদশের জয়লাভ

স্পোটর্স রিপোর্টার :  টান টান উত্তেজনা পুরো ম্যাচে। প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগের সূচনা ম্যাচেই দর্শকরা উপভোগ করলো প্রানবন্ত একটি ম্যাচ। উদ্বোধনী ম্যাচে জয় পেয়েছে সামসুজ্জোহা স্মৃতি একাদশ। তারা জিতেছে ৮ রানে। নীট কনসার্ণ প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগের পর্দা উঠেছে সোমবার ১৫ এপ্রিল।

সামসুজ্জোহা ক্রীড়া কমপ্লেক্সের মাঠে জেলা ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে এদিনের খেলায় প্রথমে মাঠে নামে লীগ রানার্সআপ সামসুজ্জোহা স্মৃতি একাদশ ও ইসদাইর চন্দা স্পোর্টিং ক্লাব। অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানে খেলার উদ্বোধন করেন ক্রিকেট উপ কমিটির আহ্বায়ক এজেডএম ইসমাইল বাবুল।

উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম সম্পাদক খোরশেদ আলম নাসির, সদস্য জাহাঙ্গীর আলম, আসলাম, ফিরোজ মাহমুদ সামা, আতাউর রহমান মিলন প্রমুখ।

সকালে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় সামসুজ্জোহার দলনায়ক শেখ হুমায়ুন। দলের রান ৩৮ ওভারে ২০৭। এ রানে অংশিদার মাত্র ৪ জন ব্যাটসম্যান। শুরুটা মন্দ ছিল না। নাঈম হোসেন মিশাল ও দিদার হোসেন ইমরান ভালই খেলছিলেন। মিশাল ২ ছক্কা আর ১ বাউন্ডারিতে ফিরেন ১৯ রানে। দিদার হোসেন ইমরান ৩ ছক্কা আর ৪ বাউন্ডারিতে ফিরেন ৫২ রানে। দ্রুত উইকেট পড়ে যাওয়ায় চাপে পড়ে তারা। মিডলঅর্ডারে মিনহাজ খান রিফাত যখন ক্রিজে অপরপ্রান্তে ব্যাটসম্যানেরা তখন আসা-যাওয়ার মিছিলে। মাঝখানে অমিত হাসান করেন ৩৫ রান। দল দু’শ রানের কোটায় পৌঁছে রিফাতে ব্যাটে চড়ে। ৬ ছক্কা আর ৩ বাউন্ডারিতে দলের সর্বোচ্চ রান করেন ৬৮।

ইসদাইর চন্দার অধিনায়ক ওমর ফারুক সোহাগ ২৩ রানে তুলে নেন ৪ উইকেট। ৫০ ওভারে ২০৮ রানের টার্গেট। কঠিন কোন টার্গেটও নয়। কিন্তু তাদের ব্যাটসম্যানেরাও সামসুজ্জোহার বোলারদের ঠিকভাবে মোকাবিলা করতে পারেনি। ৩৫ রানে ৪ উইকেট পড়ে যায়। প্রথমে ইমরান ও টিটু ৪৩ রানে জুটিতে দল ফিরে আসে খেলায়। এরপর ৬ষ্ঠ উইকেট জুটিতে আবার জমিয়ে তুলে ইমরান ও রনি। রনির আউটের পর আশা বেঁেচে ছিল ইমরানের সুবাদে। দল যখন জেতার পথে তখনই ছন্দপতন। ইমরান আউট হন ৬৪ রানে। তার ইনিংসে ছিল ৪ ছক্কা আর ২ বাউন্ডারি। রনি আউট হন ৬৩ রানে। ৪ ছক্কা আর ৬ বাউন্ডারি ছিল তার ইনিংসে। অনিক নেমে আবার জাগিয়ে তুলেন দলকে। জেতার জন্য দরকার ৮ রান। ঠিক তখনই অভিজ্ঞ আশরাফুলের বলে বাউন্ডারি সীমানায় দাড়িঁয়ে থেকে শেখ হুমায়ুন ক্যাচ ধরে ইসদাইরের মুখের হাসি কেড়ে নেন। অনিক আউট হন ২৩ রানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর ঃ সামসুজ্জোহা স্মৃতি একাদশ ৩৮ ওভারে ২০৭/১০। মিনহাজ খান রিফাত-৬৮,দিদার হোসেন ইমরান-৫২,অমিত হাসান-৩৫,নাঈম হোসেন মিশাল-১৯। অতিরিক্ত-২১। সোহাগ-৪/২৩,ইমরান-৩/১৪,রনি-২/৪৩।

ইসদাইর চন্দা স্পোর্টিং ক্লাব ৪৮.১ ওভারে ১৯৯/১০। ইমরান-৬৪,রনি-৬৩,অনিক-২৩,টিটু-১৫। অতিরিক্ত-১৫। রকিবুল হাসান-৪/৫৩,আরিফুল হাসান-৩/৩৪,আশরাফুল খান-২/২৭।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here