মানব কল্যাণ পরিষদের গ্রামীণ নারী দিবসের সভায় আফরোজা ওসমান

0
68
মানব কল্যাণ পরিষদের গ্রামীণ নারী দিবসের সভায় আফরোজা ওসমান

ষ্টাফ রিপোর্টার :  আন্তর্জাতিক গ্রামীণ নারী দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভায় খান সাহেব ওসমান আলী স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও পরিচালক আফরোজা ওসমান বলেছেন পারিবারিক আয়ে নারীর অধিকার ভিত্তিক ন্যায্যতা নিশ্চিত করতে হবে এবং নারীদের অগ্রাধিকারের মাধ্যমে আগামীর অগ্রযাত্রায় দেশ ও জাতির উন্নয়নে মানবতার সেবায় এগিয়ে আসতে হবে। ঘরে বাইরে কাজের চাপের কারণে নারীর উন্নয়ন, অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন যেন বাধাগ্রস্থ না হয়। মানব কল্যাণ পরিষদের মতো সামাজিক সংগঠন গুলিকে যৌন হয়রানী, নারী ও শিশু নির্যাতন এবং যৌতুক সহ বাল্য বিবাহ রোধে সামাজিক সচেতনতায় এগিয়ে আসতে হবে। সামাজিক কাজ করতে গেলে বাধা বিপত্তি আসবে তাই বলে থেমে থাকা যাবেনা। সর্বক্ষেত্রে নারীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে এবং স্বাস্থ্য অধিকার ও সুস্থভাবে বাঁচার জন্য সোচ্চার হতে হবে। মঙ্গলবার বেলা ১১টায় নারায়ণগঞ্জের আমলাপাড়াস্থ খান সাহেব ওসমান আলী স্কুলের হল রুমে মানব কল্যাণ পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ মান্নান ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে আন্তর্জাতিক নারী দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপরোক্ত কথাগুলো তিনি বলেন।
উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান বক্তা হিসেবে জেলার সহকারী তথ্য অফিসার সেলিম মাহমুদ বলেন, দেশের নারীদের আর্থ সামাজিক অবস্থা বিবেচনা করে নারীদের যথাযথ গুরুত্ব দিয়ে মূল্যায়ন করতে হবে। তাদের ন্যায্য অধিকার দিয়ে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যে নিয়ে আসতে হবে। যারা সামাজিক কাজকর্ম চালিয়ে যায় সেই সব আলোকিত নারীদের যথাযথ মর্যাদা দিয়ে তাদের প্রসারিত করতে হবে। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাতীয় লেখক কল্যাণ পরিষদের নির্বাহী পরিচালক আয়শা আক্তার। তিনি সকলকে আন্তরিক হয়ে সামাজিক সচেতনতামূলক কাজে অংশগ্রহণ করার আহ্বান জানান। আনন্দ টেলিভিশনের নিউজ প্রেজেন্টের ও অভিনেত্রী সানজিদা রোজ বলেন, নারীদেরকে প্রশিক্ষিত হয়ে আত্মকর্মী হতে হবে এবং নিজের সফলতা অন্যদের মাঝে বিলিয়ে দিতে হবে। সোহার নির্বাহী পরিচালক মোঃ নজরুল ইসলাম ঢালী বলেন, নারায়ণগঞ্জে আমরা অনেক ঝুকির মধ্যে কাজ করছি তার পরেও আমরা থেমে থাকিনি। এনজিওরা তাদের নিজ গতিতেই এগিয়ে যাচ্ছে। খান সাহেব ওসমান আলী স্কুলের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি রোটারীয়ান খন্দকার সাইফুল ইসলাম রুবেল বলেন, আর্ত মানবতার সেবায় এগিয়ে এসে সাামজিক অবক্ষয় রোধে সকলকে কাজ করতে হবে। অত্যান্ত মনোরম পরিবেশে আন্তর্জাতিক গ্রামীণ নারী দিবস উদযাপনের কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে ৪ জন আলোকিত নারীকে সম্মাননা পত্র দেওয়া হয়। যাদের মধ্যে ছিলেন শিক্ষক, শিক্ষানুরাগী, ধাত্রী ও সমাজকর্মী।