আসামী ছাড়িয়ে নিতে গোপালদী তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশের উপর ছাত্রলীগ নেতার হামলা

0
45
আসামী ছাড়িয়ে নিতে গোপালদী তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশের উপর ছাত্রলীগ নেতার হামলা

আড়াইহাজার প্রতিনিধি : আড়াইহাজারে আসামী ছিনিয়ে নিতে পুলিশের উপর হামলা চালিয়েছে ছাত্রলীগ নেতা । বুধবার দুপুরে গোপালদী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এ,টি,এস আই মামুনের উপর এই হামলা চালায় গোপালদী পৌর ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক সুজয় সাহা ও তার সহযোগরিা ।
জানা গেছে, বুধবার সকাল এগারটার দিকে উপজেলার রামচন্দ্রদী গ্রামের জামালউদ্দিনের ছেলে দিদার ইসলামকে গোপালদী বাজারের কলেজ রোড থেকে সন্দেহবসত আটক করেন। তার আটকের খবর জানতে পেরে গোপালদী পৌর ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক সুজয় সাহা দিদারকে ছাড়িয়ে আনতে তদন্ত কেন্দ্রে যান।
এই সময় পুলিশ তাকে ছাড়তে অস্বীকৃতি জানালে সুজয় পুলিশকে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করেন। এটি,এস আই মামুন তার প্রতিবাদ করলে সুজয় ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে মারধর শুরু করেন । সুজয় মোবাইলে তার সহযোগীদের তদন্তকেন্দ্রে এনে পুলিশের উপর হমলা চালাতে থাকে। এ খবর আড়াইহাজার থানার ওসি আক্তার হোসনে জানতে পেরে নিজেই অতিরিক্ত পুলিশ নিয়ে তদন্ত কেন্দ্রে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে সুজয় ও দিদারকে আটক করে থানায় নিয়া আসেন।
আহত এটি,এস,আই মামুন. কসস্টেবল আবুল বাশার ও ইমরানকে উদ্বার করে আড়াইহাজার উপজেলা স¦াস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে । ওসি আরো জানান, পুলিশকে মারধরের ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরর প্রস্তুতি চলছে।
গোপালদী পৌরসভা ছাত্রলীগ সভাপতি ফয়সাল আহমেদ আপন জানান, দিদার এইচ এসসি পরীক্ষার্থী। কোন কারণ ছাড়াই তাকে গ্রেফতার করে। সে কোন অপরাধের সাথে জড়িত নয়। তাকে ছাড়িয়ে আনতে তদন্ত কেন্দ্রে গেলে পুলিশ সুজয়ের সাথে খারাপ আচারণ করেন।
গোপালদী তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ নাসির উদ্দিন জানান, বেশ কয়েক দিন ধরে গোপালদী কলেজ রোড এলাকায় বখাটের উৎপাত বেড়ে গেছে। তাই পুলিশ ডিউটি দেওয়া হয়েছে। ডিউটি রত অবস্থায় পুলিশ একটি মেয়ের সাথে কথা বলতে দেখে তাকে আটক করে তদন্ত কেন্দ্রে নিয়ে আসে । যদি নিদোর্ষ হয় ছেড়ে দেওয়া হবে। এরই মধ্য সুজয় তদন্ত কেন্দ্রে এসে হামলা চালায়।