বন্দর উপজেলা নির্বাচনে মসজিদের মাইকে ডেকেও আনা গেলনা ভোটার

0
29
বন্দর উপজেলা নির্বাচনে মসজিদের মাইকে ডেকেও আনা গেলনা ভোটার

স্টাফ রিপোর্টার : নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া ভোট গ্রহণ বিকাল ৪টা পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ পরিবেশ ছিল। তবে ভোট কেন্দ্র গুলো একেবারে ফাঁকা ছিল। গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত বন্দরের ৫৪টি কেন্দ্রে নির্বাচনে ভোটারদের আগ্রহ একেবারে কম।

তাই ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিতি ছিল না। আবার কোন কোন ভোট কেন্দ্র একেবারেই ফাঁকা ছিল। সকাল থেকে সামান্য কিছু ভোটার দেখা গেলেও পরক্ষণে ভোট কেন্দ্র একেবারে ফাঁকা হয়ে যায়। দুপুরের পর থেকে বিভিন্ন এলাকার মসজিদগুলোতে মাইকিং করে ভোটারদের কেন্দ্রে আসার জন্য আহবান জানানো হয়। তবুও এতে সাড়া পড়েনি ভোটারদের। প্রায় প্রতিটি কেন্দ্রেই বেলা ৩টা পর্যন্ত ২০ থেকে ৪০টি করে ভোট গ্রহণ হয়।

এদিকে দুপুরে ভোটকেন্দ্রে পরিদর্শনে আসার পর জেলা পুলিশ সুপার হারুনুর রশিদকে কেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিতি নেই জানিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, ভোটারদের উপর কোন প্রকার চাপ নেই। ভোটার কমের ব্যাপারে তো পুলিশের কিছু করার নেই। তবে প্রচন্ড গরমের কারণে অনেকেই উপস্থিত হননি।

এবারের বন্দর উপজেলা নির্বাচনের ভোটার সংখ্যা হচ্ছে ১ লাখ ১৪ হাজার ৫৫৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার সংখ্যা ৫৮ হাজার ও নারী ভোটার সংখ্যা ৫৬ হাজার ২৬৪ জন। সেই সাথে ভোট কেন্দ্র রয়েছে ৫৪ টি। এর মধ্যে ঝূঁকিপূর্ণ হিসেবে ৪০টি কেন্দ্র এবং সাধারণ হিসেবে ১৪টি কেন্দ্র ধরা হয়েছে। আর এই নির্বাচনকে সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে কাজ করছে বলে পুলিশ জানায়। এবারের উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে কোনো প্রতিন্দ্বদ্বী না থাকায় বিনা প্রতিন্দ্বদ্বীতায় চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হয়ে গেছেন আ’লীগের মনোনীত প্রার্থী এম এ রশিদ।