প্রেমের টানে বাংলাদেশে এসে ঘর বাধলেন মালয়েশিয়ান তরুনী

0
94
প্রেমের টানে বাংলাদেশে এসে ঘর বাধলেন মালয়েশিয়ান তরুনী

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জ থেকে প্রকাশিত দৈনিক রুদ্রবার্তার সাংবাদিক মো: সিরাজুল ইসলামের বড়ছেলে শাহ আলীর প্রেমের টানে মালয়েশিয়ান তরুনী ছুটে এসেছেন বাংলাদেশে। গত মার্চ মাসের ২০ তারিখে রিজেন্ট এয়ারওয়ের একটি ফ্লাইটে মালয়েশিয়ান ২০ বছর বয়সী তরুনী নুরমাইসুরা বিনতে মালেক সেলামত বাংলাদেশে আসে। পরে তার প্রেমিক শাহ আলীর ঢাকার ডেমরা থানার ডগাইর আহমদনগর এলাকার ভাড়া বাসায় এসে অবস্থান করেন। উভয় পরিবারের সম্মতিতে গত ২৪ মার্চ নারায়ণগঞ্জ আদালতে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়।
নুরমাইসুরা বিনতে মালেক সেলামত মালয়েশিয়ার সেলাগংর শহরের কাজান এলাকার মালেক সেলামতের মেয়ে এবং প্রেমিক শাহ আলী শরিয়তপুর জেলার ভেদেরগঞ্জ থানার রামভদ্রপুর গ্রামের স্থায়ী বাসিন্ধা এবং নারায়ণগঞ্জ থেকে প্রকাশিত দৈনিক রুদ্রবার্তা পত্রিকার সাংবাদিক সিরাজুল ইসলামের বড় ছেলে।
শাহ আলীর বাবা সাংবাদিক সিরাজুল ইসলাম জানায়, আমার ছেলে চার বছর পূর্বে লেখাপড়ার উদ্দেশ্যে মালয়েশিয়ায় এফটিএমএস কলেজে ভর্তি হয়। লেখাপড়া শেষে মালয়েশিয়ায় একটা চায়না কোম্পানীতে চাকরী নিয়ে কর্মজীবন শুরু করে। ৩ বছর থাকার পর সে ভিসা জটিলতায় পরে। এরমধ্যে গত বছর আগে মালয়েশিয়ান তরুনী নুরমাইসুরা বিনতে মালেক সেলামতের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। ভিসা জটিলতার মধ্যে মালয়েশিয়ান ইমিগ্রেশন পুলিশের হাতে আটক হয়ে কিছুদিন জেল খাটা অবস্থায় বাংলাদেশ থেকে স্বজনদের সহযোগিতায় বাংলাদেশ থেকে বিমানের টিকিট কেটে জেলখানা কর্তৃপক্ষের কাছে প্রেরণ করলে গত ফেব্রুয়ারী মাসের ১৪ তারিখে সে দেশে চলে আসে। কিন্তু সে বাংলাদেশে চলে আসার পর তার প্রেমিকা মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত শাহ আলীর মামাদের সাথে যোগাযোগ করে বাংলাদেশের ঠিকানা সংগ্রহ করে বাবা-মার অনুমতি সাপেক্ষে গত ২০ মার্চ বাংলাদেশে আসে। পরে উভয় পরিবারের সম্মতিক্রমে ২৪ মার্চ নারায়ণগঞ্জ জেলা জজ আদালতে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়। সিরাজুল ইসলাম তার ছেলে ও তার পুত্রবধুকে যোগ্য সম্মান দিয়ে ঘরে তুলে নিয়েছেন। সকলের কাছে তাদের দাম্পত্য জীবনের সুখ কামনায় দোয়া কামনা করেছেন।