সোনারগাঁয়ে যুবলীগ নেতা সহ দুজনকে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম

0
45
সোনারগাঁয়ে যুবলীগ নেতা সহ দুজনকে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম

সোনারগাঁ প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়নের বাংলাবাজার এলাকায় ওই ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক সহ দুজনকে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করেছে প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় থানায় পৃথকভাবে দুটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসীরা জানান, উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়নের চরলাল গ্রামের আবু সিদ্দিকের সঙ্গে সনমান্দী ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক ও একই গ্রামের সোলায়মান হোসেন সুজনের সঙ্গে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। গত শনিবার রাতে তাদের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। এর জের ধরে আবু সিদ্দিকের নেতৃত্বে তার ছেলে সোহাগ মিয়া, তোফাজ্জল হোসেন, জান্নানত, নুর মোহাম্মদ, মোক্তার হোসেন, হারুন বেপারী, রিপন মিয়া, আমজাদ হোসেন, সোহেল মিয়া, শাহীন মিয়া সহ ১০/১৫ জনের একটি সন্ত্রাসী বাহিনী দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সোলায়মান হোসেন সুজনের উপর অতর্কিতভাবে হামলা চালিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে। পরে একই সন্ত্রাসীরা পূর্ব শত্রুতার জের ধরে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা গিয়াস উদ্দিনকে রাস্তায় একা পেয়ে তাকেও কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে। আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করা হয়। আহতদের মধ্যে সোলায়মান হোসেন সুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। পরে এ ঘটনায় সোলায়মান হোসেন সুজন ও গিয়াস উদ্দিন বাদি হয়ে পৃথকভাবে দুটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

সনমান্দী ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক সোলায়মান হোসেন সুজন জানান, পূর্ব শত্রুতার জের ধরেই আবু সিদ্দিকের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা আমাকে ও গিয়াস উদ্দিনকে একা পেয়ে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে। অপরদিকে আবু সিদ্দিক জানান, এ ঘটনায় আমাদের লোকজনও আহত হয়েছে।

সোনারগাঁ থানার ওসি মনিরুজ্জামান জানান, এ বিষয়ে দুটি অভিযোগ গ্রহন করা হয়েছে। থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।